শুক্রবার ১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

রামুতে আলাদীনের চেরাগ পেয়েছেন নলকূপ মেকানিক ইখতিয়ার

বার্তা পরিবেশক   |   শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

রামুতে আলাদীনের চেরাগ পেয়েছেন নলকূপ মেকানিক ইখতিয়ার

রামুতেই যেন আলাদীনের চেরাগ খুঁজে পেয়েছেন জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নলকূপ মেকানিক ইখতিয়ার উদ্দিন। এর আগে রামুতে থাকাকালীন দুর্নীতিতে জড়িত পাওয়ায় তাকে ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া উপজেলায় শাস্তিমূলক বদলী করা হয়েছিল। কিন্তু রামুতে ফের যোগদানে জনমনে ক্ষোভ বেড়েছে। জানা যায়, লাখো টাকার বিনিময়ে তদবির করে আবারো রামুতে বদলী আদেশ এনেছেন ইখতিয়ার।

রামু থেকে ২০২২ সালের অক্টোবর মাসে ফেনীর ছাগলনাইয়াতে শাস্তিমূলক বদলী করা হয়। এরপরে ২০২৩ সালের ৩ মার্চ বদলী হয়ে আসেন কক্সবাজার সদর উপজেলায়। সেখান থেকে একই বছরের জুলাই মাসে বদলী হয় ঈদগাহ উপজেলায়। ঈদগাহ থেকে জোর তদবির চালিয়ে এখন রামুতে যোগদান করতে অফিস আদেশ নিয়েছেন বলে জানা গেছে। ইখতিয়ার উদ্দিন চাকরি জীবনে প্রথম যোগদান করে রামুতে।

একই কর্মস্থলে টানা ৬ বছরের অধিক সময় ধরে রামু উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অফিসে কর্মরত ছিলেন। সেই সুযোগে সাধারণ মানুষ থেকে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। সেসময় তার অনিয়ম দুর্নীতির বিরুদ্ধে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলীর বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছিলেন গর্জনিয়া ইউনিয়নের মাঝিরকাটা এলাকার ফরিদুল আলম নামে এক ভুক্তভোগী। সেই অভিযোগের সত্যতা পেয়ে ফেনীতে শাস্তিমূলক বদলী করা হয়েছিল ইখতিয়ারকে।

রামু উপজেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি মাষ্টার মো. আলম বলেন, রামুর বিভিন্ন ইউনিয়ন ও ওয়ার্ডে দালাল বাটপারদের সমন্বয়ে একটি বিশাল সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছিল সে। তাদেরকে সাথে নিয়ে সরকারী টিউবওয়েল বাণিজ্য, সাব ঠিকাদারী, ব্যবসাসহ অনেক দুর্নীতি করেছিল। স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তি ও ঠিকাদারদের সাথে তার শখ্যতা গড়ে ওঠেছিল।

তাই ইফতেখার উদ্দিন রামু উপজেলা জুড়ে দুর্নীতির আখড়া তৈরি করেছিল। গ্রাম পর্যায়ে টয়লেট স্থাপন, সরকারি ভাবে ডিপ-মোটর খরচ ৭-৮ হাজার টাকা খরচ হয় কিন্তু টিউবয়েল স্থাপনের জন্য ২০-৩০ হাজার টাকা ঘুষ গ্রহন করে। এভাবে প্রতিটি সরকারি কাজে নিয়ম বর্হিভূত ভাবে অতিরিক্ত টাকা আদায় করে সাধারণ মানুষকে নিঃস্ব করেছে। রামুতে প্রথম যোগদানের শুরু থেকে আলাদীনের চেরাগ খুঁজে পেয়েছেন। তাই ঘুরেফিরে আবারো রামুকে বেছে নিয়েছেন।

মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে জোর তদবির চালিয়ে যোগদান করতে পুনরায় অফিস আদেশ পেয়েছেন বলে জানান সচেতন মহল। ইতিপূর্বে মেকানিক ইখতিয়ার উদ্দীনের অনিয়ম দুর্নীতি নিয়ে স্থানীয় কিছু পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়। বারংবার দুর্নীতির সত্যতা পেয়ে বদলী ছাড়া সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করেন নি।

রামু উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী ক্যছাই মং চাক বলেন, ইখতিয়ার উদ্দিন রামু থাকাকালীন অনিয়ম করেছিল সেসব বিষয় জানি। তবে ওনি যখন অফিস আদেশ এনেছেন আমার কিছু করার নেই। এসব বিষয় আমাদের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা নির্ধারণ করবেন। এ বিষয়ে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, চট্টগ্রাম সার্কেল তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মো. আলী আজগর বলেন, অভিযোগের বিষয়টি অবগত হয়েছি।

স্থানীয় লোকজন তাকে নিয়ে যদি অসন্তোষ প্রকাশ করে তাহলে রামু উপজেলা থেকে সরিয়ে দেয়া হবে। অভিযোগের বিষয়টি খতিয়ে দেখব।

Comments

comments

Posted ১:৩৮ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

dbncox.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

দশ বছর পর
দশ বছর পর

(1548 বার পঠিত)

সেই মা সেই ছবি
সেই মা সেই ছবি

(1168 বার পঠিত)

(1146 বার পঠিত)

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com