শুক্রবার ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

পদ্মাসেতু হয়ে ভাঙ্গার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করলো ট্রেন

  |   বৃহস্পতিবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

পদ্মাসেতু হয়ে ভাঙ্গার উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করলো ট্রেন

পদ্মাসেতু হয়ে ফরিদপুরের ভাঙ্গা স্টেশনের উদ্দেশ্যে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা ৭ মিনিটে ঢাকার কমলাপুর স্টেশন ছাড়লো পরীক্ষামূলক ট্রেন। বেজেছে ট্রেনের হুইসেল। এর মাধ্যমে পদ্মাপাড়ের মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্নপূরণ হয়েছে।

পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকা থেকে ভাঙ্গা পর্যন্ত ১০ স্টেশনের মধ্যে প্রথম দিনেই চালু হয় পাঁচ স্টেশন। পরীক্ষামূলক এই ট্রেনে রয়েছেন রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজনসহ সরকারের বিভিন্ন স্তরের ব্যক্তিরা।

ঢাকা-ভাঙ্গায় পরীক্ষামূলক ট্রেন চালুতে অটো সিগনাল পদ্ধতিতে রচিত হলো আধুনিক রেল নেটওয়ার্কের নতুন মাইলফলক। আগামী ১০ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মাসেতু দিয়ে আনুষ্ঠানিক ট্রেন চলাচল উদ্বোধন করবেন।

এর আগে বুধবার (৬ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ফরিদপুরের ভাঙ্গা থেকে আটটি বগি নিয়ে বিশেষ একটি ট্রেন পদ্মাসেতু অতিক্রম করে। মুন্সীগঞ্জের মাওয়া এবং নিমতলা স্টেশনে করা হয় যাত্রা বিরতি। এরপর রাত পৌনে ৮টায় রাজধানীর কমলাপুর রেল স্টেশনে পৌঁছায় শীতাতপ সুবিধা সম্বলিত ট্রেনটি।

প্রকল্প পরিচালক মো. আফজাল হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৯টায় কমলাপুরের নতুনভাবে সংস্কার করা অংশ থেকে পরীক্ষামূলক ট্রেনটি রওনা হয় ফরিদপুরের ভাঙ্গার উদ্দেশ্যে। পদ্মাসেতুর দুই প্রান্তের স্টেশনেই ট্রেনটির যাত্রাবিরতি করার কথা।

প্রকল্প ব্যবস্থাপক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাঈদ আহমেদ জানান, পদ্মাসেতু এবং দুই পাড়ের রেলপথ প্রস্তুত এখন। ১০ অক্টোবর উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এ রেলপথে পদ্মাসেতু অতিক্রমের পরিকল্পনা রয়েছে। দ্রুতগতির ট্রেনে চড়ে রাজধানী থেকে প্রধানমন্ত্রীর ফরিদপুরের ভাঙ্গা যাওয়ার কথা। এর পরদিনই রেলপথ উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে। তাই প্রকল্পজুড়ে এখন ভীষণ ব্যস্ততা। আর পদ্মাসেতুর রেলপথ চালু এবং প্রধানমন্ত্রীর আগমন ঘিরে পদ্মার দুই পাড়ের মানুষ উচ্ছ্বসিত।

বাংলাদেশ রেলওয়ে বিভাগ ফরিদপুর স্টেশন মাস্টারের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (৭ সেপ্টেম্বর) নতুন এ রেলপথ দিয়ে প্রথম ঢাকা থেকে ভাঙ্গা স্টেশনে যাচ্ছে ট্রায়াল ট্রেনটি। আগামী ১০ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ রেলপথের উদ্বোধন করবেন। পুরো প্রকল্পে নির্মাণ হতে যাওয়া ঢাকা থেকে যশোর পর্যন্ত রেলপথের দৈর্ঘ্য ১৭২ কিলোমিটার।

ফরিদপুর রেলওয়ে স্টেশনমাস্টার মো. তাকদির হোসেন জানান, বুধবার (৬ সেপ্টেম্বর) ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে ট্রায়াল ট্রেনটি রাজবাড়ী থেকে ফরিদপুর এসে পৌঁছায়। এখানে এক মিনিট বিরতি শেষে ফরিদপুর থেকে ভাঙ্গা হয়ে ঢাকার কমলাপুর রেলস্টেশনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে ট্রেনটি।

তিনি বলেন, এর আগে মঙ্গলবার (৫ সেপ্টেম্বর) সকাল পৌনে দশটার সময় ঈশ্বরদী থেকে ট্রায়াল ট্রেনটি রাজবাড়ী এসে পৌঁছায়। সেখানে রাত্রি যাপন শেষে রাজবাড়ী থেকে সকাল সাড়ে ১০টায় ফরিদপুরের উদ্দেশে ছেড়ে আসে। ট্রেনটির চালক হিসেবে রয়েছেন আবুল কাশেম, আর পরিচালনার দায়িত্বে আছেন মো. সালাউল্লাহ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, ভাঙ্গা থেকে রাজবাড়ী, গোপালগঞ্জ, খুলনা, রাজশাহী, চুয়াডাঙ্গার দর্শনা, যশোরের বেনাপোল রুটে এমনকি ভারতে যাওয়ার মৈত্রী ট্রেনেরও পদ্মাসেতু ব্যবহারেরও প্রস্তুতি রয়েছে। পর্যায়ক্রমে পায়রা বন্দরসহ আরো নতুন নেটওয়ার্ক যুক্ত হবে পদ্মাসেতুর রেললাইনে। এ ৮২ কিলোমিটার রেলপথে কোনো লেভেল ক্রসিং থাকছে না।

১২০ কিলোমিটার গতিতে রেল চলাচলে সবরকম দক্ষতা অর্জন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

Comments

comments

Posted ১:২৪ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২৩

dbncox.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com