রবিবার ২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

নাইক্ষ্যংছড়িতে রোহিঙ্গা ট্রানজিট ক্যাম্প নির্মাণের উদ্যোগ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:   |   রবিবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২৩

নাইক্ষ্যংছড়িতে রোহিঙ্গা ট্রানজিট ক্যাম্প নির্মাণের উদ্যোগ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের প্রস্তুতি হিসেবে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নে একটি সাময়িক বিশ্রাম শিবির (ট্রানজিট ক্যাম্প) ও একটি প্রত্যাবাসন শিবির (রিপ্যাট্রিয়েশন ক্যাম্প) নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সেখানে সীমান্তের তুমব্রু খালের ওপর বাংলাদেশ-মিয়ানমার মৈত্রী সেতুর অবস্থান। খালের বাংলাদেশ অংশে বর্ডার গার্ড অব বাংলাদেশের (বিজিবি) তুমব্রু সীমান্তচৌকি ও পূর্ব পাশে মিয়ানমারের বর্ডার গার্ড অব পুলিশের (বিজিপি) ঢেঁকিবনিয়া সীমান্তচৌকি রয়েছে।

প্রত্যাবাসন শুরু হলে মংডু জেলার উত্তর-পশ্চিমের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা সীমান্তসংলগ্ন এলাকা থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের ঘুমধুমের তুমব্রু সীমান্ত দিয়ে ফেরত পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) কর্মকর্তারা।

নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রোমেন শর্মা এ বিষয়ে কালবেলাকে বলেন, নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম ইউনিয়নে সাময়িক বিশ্রাম ও প্রত্যাবাসন শিবিরের জন্য আরআরআরসি থেকে সাড়ে তিন একর জায়গা চাওয়া হয়েছে। রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর সময় সাময়িক অবস্থানের জন্য ঘুমধুমে ২০ শতক জমির ওপর সাময়িক বিশ্রাম শিবির করা হবে। সীমান্তসংলগ্ন তুমব্রুতে ৩ দশমিক ২০ একর জমির প্রত্যাবাসন শিবির হবে।

কক্সবাজারের শরণার্থী প্রত্যাবাসন কমিশনের কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমার কালবেলাকে বলেন, প্রত্যাবাসন শুরু হলে রোহিঙ্গাদের প্রথমে ঘুমধুমের সাময়িক বিশ্রাম শিবিরে নেওয়া হবে। সেখান থেকে প্রত্যাবাসন শিবিরে নিয়ে দুই দেশের দাপ্তরিক কাজ সম্পন্ন করে মিয়ানমারে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

আরআরআরসির দপ্তরের কর্মকর্তারা বলেছেন, প্রত্যাবাসন শুরু হলে রাখাইনের মংডু জেলার উত্তর-পশ্চিম এলাকার বাসিন্দাদের ওই পথে স্বদেশে ফেরত পাঠানো হবে। আগেভাগে প্রস্তুতি হিসেবে দুটি অস্থায়ী শিবির নির্মাণ করে রাখা হচ্ছে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে দুটি অস্থায়ী শিবির নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ঘুমধুম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আজিজ। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে শিবির দুটি নির্মাণে দরপত্রও আহ্বান করা হয়েছে।

৪৩ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবু বকর সিদ্দিক সাইমুম জানান, আগামীকাল ১০ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় মায়ানমারের বিজিপির সঙ্গে পতাকা বৈঠকের পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

প্রসঙ্গত, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বর্বরতার শিকার হয়ে ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট থেকে ২০১৮ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যের রোহিঙ্গারা সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে আশ্রয় নিতে বাধ্য হয়। তাদের স্বদেশে ফিরে যাওয়ার ব্যাপারে সম্প্রতি আলাপ-আলোচনা শুরু হয়েছে। আরআরআরসির দপ্তরের হিসেব মতে, কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের আশ্রয়শিবিরে বর্তমানে ৯ লাখ ৬১ হাজার ৭২৯ জন রোহিঙ্গা আশ্রয় নিয়েছে।

Comments

comments

Posted ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২৩

dbncox.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com