শনিবার ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই আশ্বিন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
শিরোনাম

ঋণের চাপে পড়া এড়ানোর চেষ্টা বাংলাদেশের

  |   শুক্রবার, ১৮ মার্চ ২০২২

ঋণের চাপে পড়া এড়ানোর চেষ্টা বাংলাদেশের

দেশবিদেশে নিউজ ডেস্ক:

১৯৭৬ সালে শুরু হওয়া চীন-বাংলাদেশ সম্পর্ক ২১ শতকের প্রথম দশক পর্যন্ত বাণিজ্য চুক্তির মধ্যে সীমাবদ্ধ ছিল। বাংলাদেশ সব সময়ই অন্য দেশের সঙ্গে স্মার্ট থেকে ঋণ ব্যবস্থা করেছে।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ডক্টর মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম বলেছেন যে বাংলাদেশের জাতীয় প্রকল্পগুলির কাজ সম্পূর্ণ করার জন্য বিদেশী ঋণের প্রয়োজন। তাঁর মতে, “বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশের বৈদেশিক ঋণের প্রয়োজন। আমরা বিভিন্ন উৎস থেকে ঋণ নিতাম। প্রথম অবস্থানে বিশ্বব্যাংক, তারপর জাইকা (জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি) এবং চীনের অবস্থান অনেক পরে। আফ্রিকার বিভিন্ন দেশও চীন থেকে ঋণ নিয়ে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে খুব ভালো করছে। শ্রীলঙ্কায় একটি সমস্যা ছিল, শহরের উন্নয়নের জন্য এ কারণে তারা একটি সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। বাংলাদেশের দৃষ্টিভঙ্গি হল চীনা সফ্ট-লোন সুবিধা ব্যবহার করা যেখানে মধ্যম আয়ের দেশগুলির জন্য গ্রেস পিরিয়ড
অনেক বেশি হবে। শ্রীলঙ্কা ১৯৯৭ সাল থেকে একটি মধ্যম আয়ের দেশ। আমরা ২০২৬ সালের মধ্যে একটি মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হব। সেই কারণে, আমাদের গ্রেস পিরিয়ড অনেক বেশি এবং সুদের হার কম।

তিনি হাইলাইট করে বলেন যে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সবচেয়ে বিশিষ্ট ঋণদাতা হচ্ছে জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (জাইকা), বিশ্বব্যাংক ও সম্প্রতি চীন। তিনি আরও যোগ করেন যে শ্রীলঙ্কার বড় পোর্ট সিটি কলম্বো জাতীয় প্রকল্পের বিপরীতে যার বেশিরভাগই চীন দ্বারা অর্থায়ন করা। বাংলাদেশ এ ধরণের ঋণের ফাঁদে আটকা পড়া এড়াতে সক্ষম হয়েছে। তিনি আরও
বলেন, স্বল্প আয়ের দেশ হওয়ায় ঋণ পরিশোধের জন্য বাংলাদেশের স্বল্প সুদ এবং দীর্ঘমেয়াদি সময়ের ঋণ দরকার। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও রাজনীতি বিভাগের শিক্ষক খালেদ কুদ্দুস বলেন, বাংলাদেশকে অবশ্যই চীনের সাথে যে কোনো ঋণ চুক্তির করতে তা মনোযোগ দিয়ে খতিয়ে দেখতে হবে এবং বুঝতে হবে ঋণটি দেশের সর্বোত্তম স্বার্থে হবে কিনা এবং
পরিশোধের মেয়াদ কতদিন হবে। তিনি বলেন, “আমরা জানি যে আমাদের মতো একটি দেশের উন্নয়নের কারণে বৈদেশিক ঋণ বা বৈদেশিক সাহায্য প্রয়োজন। এটা সত্য যে এগুলোকে আমাদের কার্যকরভাবে কাজে লাগাতে হবে। উদাহরণস্বরূপ যমুনা সেতু, বিশ্বব্যাংক এবং জাইকা

বাংলাদেশ সরকার দ্বারা আনুপাতিকভাবে অর্থায়ন করেছিল। বাংলাদেশকে ২৫ বছরের মধ্যে ঋণ পরিশোধ করতে বলা হয়েছে। কিন্তু আমরা ঋণ পরিশোধ করতে এতটা সময় নিইনি, কারণ আমরা খুব অল্প সময়ের মধ্যে তা পরিশোধ করতে পেরেছি। সেই বিনিয়োগ আমাদের জন্য লাভজনক ছিল। পদ্মা সেতুর ঋণ আমাদের অর্থনীতিতে ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। চীন যখন
আমাদের ঋণের প্রস্তাব দেয়, তখন আমাদের মূল্যায়ন করতে হবে তাদের সুদ কী এবং তারা আমাদের কী হারে ঋণ দিচ্ছে। আমারা চীনাদের বিনিয়োগ এবং মেট্রোরেল ও স্মার্ট সিটি সহ যেসব খাতে ঋণ নিচ্ছি সেসব খাতে আমাদের আউটপুট তুলনা করতে হবে।“

এদিকে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ড. ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, “বাংলাদেশ কখনোই ঋণ খেলাপির ঝামেলায় পড়েনি। সবসময় সময়মতো ঋণ পরিশোধ করেছে একটি ভুক্তভোগী দেশ হিসাবে, যারা ৫০ বছরের মধ্যে শূন্য রিজার্ভ থেকে একটি সম্মানজনক অবস্থানে যাত্রা শুরু করেছে। সর্বদা মনে রাখবেন যে আমাদের এমন কোনও ঋণ নেওয়া উচিত যা আমরা পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হব না। চীনা ঋণ সঠিকভাবে ব্যবহার করা
হয়েছে কারণ আমাদের প্রবৃদ্ধির গতি ছিল।” সুত্র:   A24 news agency.

আদেবি/ জেইউ।

Comments

comments

Posted ১:২৯ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, ১৮ মার্চ ২০২২

dbncox.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

প্রকাশক
তাহা ইয়াহিয়া
সম্পাদক
মোঃ আয়ুবুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়
প্রকাশক কর্তৃক প্রকাশিত এবং দেশবিদেশ অফসেট প্রিন্টার্স, শহীদ সরণী (শহীদ মিনারের বিপরীতে) কক্সবাজার থেকে মুদ্রিত
ফোন ও ফ্যাক্স
০৩৪১-৬৪১৮৮
বিজ্ঞাপন ও সার্কুলেশন
01870-646060
Email
ajkerdeshbidesh@yahoo.com